টেলিস্কোপে রাতের আকাশ ছুঁয়ে দেখলো অর্ণব-করিস্মারা

নিজস্ব সংবাদদাতা : আগামীর মধ্যে জ্যোতির্বিজ্ঞানের বোধ গড়ে তুলতে হবে। এই বোধ তৈরির সঙ্কল্পেই খুদে বিজ্ঞানী হওয়ার চেষ্টাতে মশগুল করিস্মা, অর্ণবরা। টেলিস্কোপে রাতের আকাশ প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করলো পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের বাউড়িয়া বিজ্ঞান কেন্দ্র। আর তা দেখে উচ্ছ্বসিত করিস্মা, অর্ণবরা। সোজা কথায়, ‘ভবিষ্যত গড়তে পারে বিজ্ঞান, জ্যোতিষ মানেই অন্ধকার। এই সোজা কথাটা স্পষ্ট করে উচ্চারণ হয়েছে প্যাণ্ডমিকে। করোনার সময়ে বিজ্ঞান ভরসা জুগিয়েছিল। হাসপাতাল খোলা ছিল। ধর্মীয় স্থানগুলোর দরজা বন্ধ হয়েছিল।’, বেলুড়ে রবিবার ‘জনস্বাস্থ্য সচেতনতা ও বিজ্ঞান কর্মীদের কাজ’ বিষয়ক আলোচনা সভাতে কথাগুলি বলেছেন বক্তারা। বিস্তারিত জানতে নীচে পড়ুন…

রবিবার বেলুড়ে বিজ্ঞান মনস্ক আলোচনার উচ্চারণের বাস্তবটা হাতে-কলমে দেখেছে বাউড়িয়া বিজ্ঞান কেন্দ্রের উদ্যোগে রাতের আকাশ টেলিস্কোপে দেখতে আসা খুদে পড়ুয়ারা। পূর্ব বুড়িখালির বিবেকানন্দ ক্লাবে বাউড়িয়া বিজ্ঞান কেন্দ্রের পক্ষে স্কুল শিক্ষক সরোজ ঘোষাল রাতের আকাশের তারাদের সঙ্গে মাটির তারাদের পরিচয় ঘটান। বিজ্ঞান আন্দোলনের কর্মী অদিতি ভৌমিক বলেন, ‘জ্যোতিষে না, জ্যোতির্বিজ্ঞানে হ্যাঁ খুদে পড়ুয়াদের।’

রাতের আকাশের চন্দ্র-গ্রহ-তারা টেলিস্কোপে দেখে আনন্দে মাতলো খুদে পড়ুয়ারা। খালি চোখে যা দেখা যায় না। তাও দেখা যায় টেলিস্কোপে। বাউড়িয়ার পূর্ব বুড়িখালির বিবেকানন্দ ক্লাবের ছাদে রবিবার রাতে টেলিস্কোপে রাতের আকাশে নক্ষত্র, গ্রহ, চন্দ্র দেখতে ভিড় জমালো করিশ্মা, অর্নবদের মত খুদে পড়ুয়ারা। টেলিস্কোপে মঙ্গল গ্ৰহ ও বৃহস্পতি গ্ৰহ চাক্ষুষ করে আনন্দে আত্মহারা হলো খুদে পড়ুয়ারা। আগামীর ভবিষ্যত মাটির তারারা! সেই তারারা ‘মেঘে ঢাকা তারা’র মত। খুদে পড়ুয়ারা যাদের ভবিষ্যতে তারার মত উজ্জ্বল হয়ে ওঠার কথা। সেই তারারা স্কুলের মুখ দেখেনি এখনও। নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেনী পর্যন্ত ক্লাশ খুললেও অষ্টম শ্রেনী পযর্ন্ত পড়ুয়ারা সরকারি সিদ্ধান্তের কারনে ক্লাশের মুখ দেখতে পারেনি। আগামীর সেইসব খুদে-খুদে তারাদের আকাশের মত স্বপ্নের সংকল্প তৈরী করে তুলতে এদিনের উদ‍্যোগ বলে জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের বাউড়িয়া বিজ্ঞান কেন্দ্রের সদস‍্যরা। খুদে পড়ুয়ারা টেলিস্কোপে আকাশে থাকা নক্ষত্র-চাঁদ দেখে খুশিতে মেতে ওঠে।

এদিন পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের ‘অক্ষয় কুমার দত্ত’ বিজ্ঞান কেন্দ্রের উদ‍্যোগে বেলুড়ে ‘জনস্বাস্থ‍্য সচেতনতা ও আমাদের কাজ’ বিষয়ক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনায় উঠে আসে বিজ্ঞান মনস্ক বোধ তৈরী করতে কিভাবে বাধার প্রাচীর গড়ে তুলছে রাষ্ট্রের মদতে বিভেদের শক্তি। মানুষের মধ‍্যে কুসংস্কারকে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করছে! বক্তারা বলেন, সমবেতভাবে পরিবেশকে সুস্থকর করে তুলতে ঘৃণার বিরুদ্ধে যুক্তিবাদী মনন গড়ে তোলা, কুসংস্কার বিরোধী বিজ্ঞান মনস্ক প্রচার, থ্যালাসেমিয়া সচেতনতা প্রচার গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে সুন্দর আগামীর লক্ষ্যে জনস্বাস্থ্য আন্দোলনকে শক্তিশালী করতে বিজ্ঞান আন্দোলনের কর্মীদের ভূমিকা নিতে হবে। আলোচনা করেন বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা: অশোক ভট্টাচার্য, শাশ্বত পাড়ুই, সংগঠনের হাওড়া জেলা সম্পাদক পার্থ ঘোষ, রবীন ব্যানার্জি প্রমুখ। আলোচনা সভা পরিচালনা করেন শুক্লা ঘোষ, বিশ্বজিৎ পাল।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা