কমনওয়েলথে সোনাজয়, রাতভর আনন্দ-উচ্ছাসে মাতল পাঁচলার গ্রাম

নিজস্ব সংবাদদাতা : প্রতিবেদন লিখতে গিয়ে মনে পরে গেল ফুটবল কিংবা ক্রিকেট বিশ্বকাপের টানটান ম্যাচের কথা। রাত জেগে পাড়ার মোড়ে সবাই মিলে খেলা দেখা, আর গোল হলেই ‘গোওওল’ বলে চেঁচিয়ে ওঠা। সে এর অনন্য উন্মাদনা। ক্রিকেট কিংবা ফুটবল বিশ্বকাপ হচ্ছেনা বটে, তবে সে-ই উন্মাদনাই চোখে পড়ল পাঁচলার দেউলপুর গ্রামে। আর হবে না বা কেন! গ্রামের ছেলে কমনওয়েলথের মতো বিশ্বব্যাপী ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছে। কমনওয়েলথ গেমসে ভারোত্তোলনে সোনাজয়ী অচিন্ত্য শিউলির গ্রামের মানুষ এভাবেই রাতভর উচ্ছাসে মাতলেন। রবিবার সন্ধ্যা থেকেই দেউলপুর শিউলিপাড়ায় সাজো সাজো রব ছিল। বিস্তারিত জানতে নীচে পড়ুন...

স্থানীয় ক্লাবের উদ্যোগে শিউলিপাড়া জাতীয় পতাকা ও তাদের সকলের প্রিয় অচিন্ত্যর ছবিতে মুড়ে ফেলা হয়েছিল। লাগানো হয়েছিল জায়ান্ট স্ক্রিন। সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত হতেই বাড়তে থাকে উন্মাদনার পারদ। আট থেকে আশি সকলেই চোখ রাখেন জায়ান্ট স্ক্রিনে। এমনকি এলাকার মা-বোনেরাও অচিন্ত্যর লড়াই দেখতে সামিল হন। সময় যত বাড়তে থাকে ততই বাড়তে থাকে উত্তেজনার পারদ। ভারতীয় সময় মধ্যরাতে প্রতিযোগিতায় নামেন অচিন্ত্য। টানটান উত্তেজনার মাঝে মোট ৩১৩ কেজি(১৪৩+১৭০) ভার উত্তোলন করে স্বর্ণপদক জয় করেন দেউলপুরের অচিন্ত্য। তারপরই উচ্ছাসে ফেটে পড়েন এলাকার মানুষ। জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে ঢাক-ঢোল নিয়ে আনন্দে মাতেন এলাকার মানুষ। তাদের কথায়, বিশ্বমঞ্চে দেউলপুর গ্রামকে তুলে ধরল অচিন্ত্য। এ এক ঐতিহাসিক মুহুর্ত। এভাবেই ‘সোনার ছেলে’ অচিন্ত্যর স্মরণীয় মুহূর্তকে আরও আলোকোজ্জ্বল করে তুলল দেউলপুরের মানুষ।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা