রূপনারায়ন নদের সংযোগরক্ষাকারী সুতি খালের পাশে থেকে উদ্ধার একটি বাঘরোলের মুন্ডু

নিজস্ব সংবাদদাতা : রূপনারায়ন নদের সংযোগরক্ষাকারী সুতি খালের পাশে থেকে উদ্ধার একটি বাঘরোলের মুন্ডু। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য গ্রামীণ শ্যামপুর থানার নাটোর গ্রাম এলাকায়। ওই এলাকায় একটি বাঘরোলকে মেরে ফেলা হয়েছে এই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান বন দফতরের আধিকারিকরা। তারা তদন্ত করতে গিয়ে বাঘরোলের একটি মুন্ডু উদ্ধার করেন।‌ সেই মুন্ডুটিকে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উলুবেড়িয়ার শ্যামপুর দু’নম্বর ব্লকের নাকোল গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়। শুক্রবার বন দফতরের উলুবেড়িয়া রেঞ্জ অফিসে বিদ্যুতায়িত হয়ে একটা বাঘরোলকে মারা গেছে বলে খবর আসে । ফোন মারফৎ বন দফতরের উলুবেড়িয়ার রেঞ্জ অফিসার উৎপল সরকার বলেন, বাঘরোল মারার খবর  পেয়ে তিনি ও তার  বনদপ্তরের কর্মীরা ওই এলাকায় যান। সেখানে গিয়ে তারা জানতে পারেন যে, নাকোল দক্ষিন গ্রামের এক ব্যক্তির  রাস্তার পাশে একটা ছোট পুকুর আছে। জানা যায়, ওই পুকুরের মালিকের নাম  নিবাস প্রামানিক। তার পুকুরে প্রায়শইঃ উদবিড়ালে মাছ খেয়ে যায়। তাই তিনি ওই ছোটো পুকুরের পাশে নেট দিয়ে ঘিরে রাখেন। শুধু নেট দিয়ে ক্ষান্ত হননি। নেটের পাশাপাশি বিদ্যুৎতের তার দিয়ে ঘিরে রাখেন পুকুরের চারপাশ। সেই তারের সাথে বিদ্যুৎ সংযোগ ছিল বলে অভিযোগ। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় বৃহস্পতিবার রাতে একটি বাঘরোল মাছ খেতে গিয়ে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে মারা যায়। এই খবর বনদপ্তরের কাছে আসার পর রেঞ্জ অফিসার সহ অন্যান্য কর্মীরা ওই এলাকায় যান । রেঞ্জ অফিসার উৎপল সরকার বলেন, আমরা ওই এলাকায় গিয়ে প্রথমে নাকোল‌ দক্ষিন এলাকার ওই পুকুরের মালিকের খোঁজ করি। তবে ওই পুকুরের মালিক এলাকায় ছিলেন না। উৎপল বাবু বলেন, এমনকি বাঘরোলের সন্ধান ও মেলেনি। ওই টিমের লোকজন অন্যান্য জায়গায় খোঁজ করতে গিয়ে ওই গ্রামের ভেতর দিয়ে যাওয়া খালের ধারে রক্তের ছাপ দেখতে পান। কিছু সময় ঘুরতে ঘুরতে বাঘরোলের একটি কাটা মুন্ডু উদ্ধার করেন বনদপ্তরের কর্মীরা। রেঞ্জ অফিসার উৎপল বাবু বলেন, ওই মুন্ডুকে নিয়ে তারা ময়নাতদন্তের জন্য গড়চুমুকে প্রানী চিকিৎসা কেন্দ্রে পাঠিয়েছেন। ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে, ওই বাঘরোলের বয়স, ওই প্রানীটি পুরুষ না মহিলা। এই বাঘরোলের মৃত্যুর বিষয়ে তদন্ত হচ্ছে বলে বন দফতরের উলুবেড়িয়ার রেঞ্জ অফিসার উৎপল সরকার বলেন। উল্লেখ করা যেতে পারে ২০১৫ সালের আগষ্ট মাসে গ্রামীণ হাওড়ার জগৎবল্লভপুর থানার নরেন্দ্রপুরে একটি বাঘরোল মেরে খাওয়ায় অপরাধে কয়েকজনকে প্রায় পাঁচ বছর জেল হেফাজতে থাকতে হয়। শ্যামপুরের বাঘরোলে মৃত্যু ঘটনায় বনদপ্তর শ্যামপুর থানা অঙ্গ্যাত পরিচয় ব্যাক্তির নামে অভিযোগ করা হয়েছে । পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে ।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা