উলুবেড়িয়ার আবাসিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিশুর মৃত্যু, এলাকায় চাঞ্চল্য, হোস্টেলের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা : উলুবেড়িয়ার এক আবাসিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জলে ডুবে এক ছাত্রীর মৃত্যুর ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল। বুধবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে উলুবেড়িয়ার বাগান্ডা রনমহল এলাকায়। জানা গেছে, ওই ইসলামিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জ’না কুড়ি আবাসিক পড়ুয়া পড়াশোনা করে। যদিও লকডাউনের জন্য সাতজন পড়ুয়া ছিলেন। মাসখানেক আগে হোমে আসে বাঁকুড়া জেলার সোনামুখী এলাকার বাসিন্দা নুসরত জাহান।

সূত্রের খবর, অন্যান্যদিনের মতোই দুপুরে খাওয়ার পরই হোস্টেলের রুমে ঘুমাতে পাঠানো হয় বছর পাঁচেকের নুসরত জাহানকে। তার কিছুক্ষণ পরই হোস্টেল সংলগ্ন পুকুরে নুসরতের দেহ ভাসতে দেখা যায়। এই খবর জানাজানি হতেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয়রা। উলুবেড়িয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির কর্ত্রী মারুফা খাতুন জানান, “রাঁধুনি মূল দরজা খুলে পুকুরে বাসনপত্র ধুতে গিয়েছিলেন। হতে পারে সেই সুযোগেই ছাত্রীটি পুকুরের দিকে চলে যায়।” মারুফার দাবি, “শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তরফে কোনোরূপ নজরদারির অভাব ছিলনা।” পুলিশ সূত্রে খবর, অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা দায়ের করে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করা হয়েছে। পুলিশ মৃত ছাত্রীর দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে। তবে এই ধরণের ঘটনার জেরে আবাসিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির নিরাপত্তা ও নজরদারির অভাব নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা