ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের চাপে কর্মচারীর মৃত্যু, এই অভিযোগে দেহ আটকে বিক্ষোভ উলুবেড়িয়া SDO দপ্তরে

নিজস্ব সংবাদদাতা : অফিসে আসার পথে দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল এক সরকারি কর্মচারীর। ঘটনাটি ঘটেছে গ্রামীণ হাওড়ার রাজাপুর থানার বেলতলায়। জানা গেছে, মৃতের নাম সুসেনজিৎ নস্কর (৩৪)। হাওড়ার দক্ষিণ সাঁকরাইলের বাসিন্দা উলুবেড়িয়া মহকুমা শাসকের দপ্তরে নির্বাচন বিভাগের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর হিসাবে কর্মরত। সুসেনজিতের মৃতদেহ নিয়ে মহকুমাশাসকের সামনে বিক্ষোভ দেখান তাঁর সহকর্মীরা। তাঁদের অভিযোগ, তাদের উপর মানসিক নির্যাতন চালাচ্ছে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ। তা থেকেই ঘটছে এই ধরনের ঘটনা।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সকালে নিজের বাইকে এক সহকর্মীকে নিয়ে অফিস আসছিলেন সুসেনজিৎ। ৬ নং জাতীয় সড়কের রাজাপুর থানা এলাকার বেলতলায় বাইকটি নিয়ন্ত্রণ হারালে বাইক থেকে দু’জনেই ছিটকে পড়ে যান। সেই সময় পিছন থেকে আসা একটি লরি সুসেনজিতের উপর দিয়ে চলে যায়। ঘটনাস্থলেই ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। অপরজনকে পুলিশ উদ্ধার করে উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে পাঠায়। এদিন বিকেলে ময়নাতদন্তের পর সুসেনজিতের মৃতদেহ উলুবেড়িয়া মহকুমাশাসকের কার্যালয় প্রাঙ্গণে নিয়ে আসা হলে সেখানে তাঁর মৃতদেহে মাল্যদান করে শেষ শ্রদ্ধা জানান স্থানীয় বিধায়ক ইদ্রিস আলী। বিধায়ক বেরিয়ে যাওয়ার পরেই মৃতদেহ আটকে রেখে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন সুসেনজিতের সহকর্মীরা।

তাঁদের দাবি, লকডাউনের জেরে ট্রেন বন্ধ, বাসের সংখ্যা খুবই কম। অফিসে আসার ক্ষেত্রে সময়ের সরকারী শিথিলতা রয়েছে। কিন্তু, সেটাকে মান্যতা না দিয়ে সঠিক সময়ে অফিসে আসার জন্য মানসিকভাবে প্রবল চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। সি.এল থাকা সত্ত্বেও তাদের প্রাপ্য ছুটি নিতে দেওয়া হচ্ছে না। যখন তখন তাদের অফিসে আসতে বাধ্য করা হচ্ছে।তাদের আরও দাবি, অবিলম্বে তাদের যাতায়াতের জন্য গাড়ির ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের উপর মানসিক নির্যাতন বন্ধ করতে হবে। এই ঘটনায় অবিলম্বে মহকুমাশাসকের হস্তক্ষেপ দাবি করেন তারা। পরে মহকুমাশাসকের আশ্বাসে বিক্ষোভ উঠে যায়। মৃতদেহটি ওই কর্মীর বাড়ির উদ্দেশ্যে পাঠানো হয়।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা