অবশেষে বহু প্রতিক্ষিত উলুবেড়িয়া ও উদয়নারায়ণপুরের বকপোতা উড়ালপুলের উদ্বোধন আজ

নিজস্ব সংবাদদাতা : সোমবার অর্থাৎ আজ উলুবেড়িয়া রেল উড়ালপুল ও উদয়নারায়ণপুরের বকপোতা সেতু উদ্বোধন করবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি । তিনি খড়গপুরে আয়োজিত একটি বিশেষ অনুষ্ঠান থেকে রিমোটের সাহায্যে সেতু দুটির উদ্বোধন করবেন।

উল্লেখ্য উলুবেড়িয়া বাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরনের পাশাপাশি হাওড়া গ্রামীণ জেলার শেষ প্রান্ত উদয়নারায়ণপুর নব নির্মিত বকপোতা সেতুর উদ্বোধন হতে চলেছে মুখ্যমন্ত্রী হাত ধরে । উল্লেখ্য  ৬ নং জাতীয় সড়ক থেকে উলুবেড়িয়া শহরে ঢোকার গুরুত্বপূর্ণ পথের মাঝে উলুবেড়িয়া পশ্চিম কেবিনের কাছে রয়েছে ডোমপাড়া রেলওয়ে ক্রসিং।

উলুবেড়িয়া শহরকে দুই ভাগে ভাগ করেছে দক্ষিণ পূর্ব রেল। একদিকে রয়েছে ৬ নং জাতীয় সড়ক। অপর প্রান্তে অবস্থিত উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশালিটি হসপিটাল, উলুবেড়িয়া মহকুমা আদালত সহ একাধিক সরকারী দফতর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। পাশাপাশি হাওড়া জেলার দুটি অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র ৫৮ গেট ও গাদিয়াড়া যাওয়ার পথেও পড়ে এই ক্রসিং।

একটা সময়  গেট দীর্ঘক্ষণ পড়ে থাকার জেরে চরম সমস্যায় পড়তেন রোগী, ছাত্র ছাত্রী, অফিস যাত্রী, পর্যটক থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ । দীর্ঘদিন ধরেই উলুবেড়িয়া বাসীর দাবি ছিল একটি উড়ালপুলের । সেই দাবী মেনে তৎকালীন উলুবেড়িয়ার প্রয়াত সাংসদ সুলতান আহমেদ ও তৎকালীন প্রয়াত বিধায়ক প্রয়াত হায়দার আজিজ সফি’র উদ্যোগে এই উড়ালপুল নির্মানের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল।

উলুবেড়িয়া উড়ালপুল তৈরীর ব্যয় ধার্য করা হয়েছিল ৩৫ কোটি টাকার বেশি।পূর্ত দফতর সূত্রে খবর ৫১২ মিটার দৈর্ঘ্য ও  সাড়ে ৭ মিটার প্রস্থ এই উড়ালপুলের। যার মধ্যে  ৬২ মিটার রেলের জায়গার উপরে। প্রসঙ্গত উলুবেড়িয়া রেল ওভারব্রিজের কাজ শুরু হয় ২০১৫ সালের অক্টোবর মাসে। বেশ কিছু কারনে সমস্যা তৈরি হলেও নির্মাণ কাজ শেষ হয় চলতি বছরেই।

ব্রীজ টি নির্মান করে পূর্ত সড়ক দফতর। রেল ও রাজ্য সরকারের অর্থে নির্মিত হয় এই উলুবেড়িয়া সেতু। অপরদিকে উদয়নারায়ণপুর ব্লকে দামোদর নদের উপর পুরানো বকপোতা সেতুর পাশেই আর একটি নতুন সেতু তৈরির কাজ শুরু করেছিল পূর্ত সড়ক দফতর। পুরানো সেতুটি দুর্বল হওয়ার জন্য আর একটি নতুন সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা করে রাজ্য সরকার।

সব মিলিয়ে প্রায় ৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে এই বকপোতা সেতু টি নির্মান করা হয়েছে।  উল্লেখ্য এই নতুন সেতুটি তৈরির ফলে হুগলির জাঙ্গিপাড়া থেকে হাওড়ার উদয়নারায়ণপুর দুই জেলার মধ্যে যোগাযোগ সুদৃঢ় হতে চলেছে।

উল্লেখ্য উলুবেড়িয়া বাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরনের পাশাপাশি হাওড়া গ্রামীণ জেলার শেষ প্রান্ত উদয়নারায়ণপুর নব নির্মিত বকপোতা সেতুর উদ্বোধন হতে চলেছে মুখ্যমন্ত্রী হাত ধরে ।

উল্লেখ্য  ৬ নং জাতীয় সড়ক থেকে উলুবেড়িয়া শহরে ঢোকার গুরুত্বপূর্ণ পথের মাঝে উলুবেড়িয়া পশ্চিম কেবিনের কাছে রয়েছে ডোমপাড়া রেলওয়ে ক্রসিং। উলুবেড়িয়া শহরকে দুই ভাগে ভাগ করেছে দক্ষিণ পূর্ব রেল। একদিকে রয়েছে ৬ নং জাতীয় সড়ক।

অপর প্রান্তে অবস্থিত উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশালিটি হসপিটাল, উলুবেড়িয়া মহকুমা আদালত সহ একাধিক সরকারী দফতর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। পাশাপাশি হাওড়া জেলার দুটি অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র ৫৮ গেট ও গাদিয়াড়া যাওয়ার পথেও পড়ে এই ক্রসিং।

একটা সময়  গেট দীর্ঘক্ষণ পড়ে থাকার জেরে চরম সমস্যায় পড়তেন রোগী, ছাত্র ছাত্রী, অফিস যাত্রী, পর্যটক থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ । দীর্ঘদিন ধরেই উলুবেড়িয়া বাসীর দাবি ছিল একটি উড়ালপুলের ।

সেই দাবী মেনে তৎকালীন উলুবেড়িয়ার প্রয়াত সাংসদ সুলতান আহমেদ ও তৎকালীন প্রয়াত বিধায়ক প্রয়াত হায়দার আজিজ সফি’র উদ্যোগে এই উড়ালপুল নির্মানের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল। উলুবেড়িয়া উড়ালপুল তৈরীর ব্যয় ধার্য করা হয়েছিল ৩৫ কোটি টাকার বেশি।

পূর্ত দফতর সূত্রে খবর ৫১২ মিটার দৈর্ঘ্য ও  সাড়ে ৭ মিটার প্রস্থ এই উড়ালপুলের। যার মধ্যে  ৬২ মিটার রেলের জায়গার উপরে । প্রসঙ্গত উলুবেড়িয়া রেল ওভারব্রিজের কাজ শুরু হয় ২০১৫ সালের অক্টোবর মাসে।

বেশ কিছু কারনে সমস্যা তৈরি হলেও নির্মাণ কাজ শেষ হয় চলতি বছরেই। ব্রীজ টি নির্মান করে পূর্ত সড়ক দফতর। রেল ও রাজ্য সরকারের অর্থে নির্মিত হয় এই উলুবেড়িয়া সেতু।

অপরদিকে উদয়নারায়ণপুর ব্লকে দামোদর নদের উপর পুরানো বকপোতা সেতুর পাশেই আর একটি নতুন সেতু তৈরির কাজ শুরু করেছিল পূর্ত সড়ক দফতর। পুরানো সেতুটি দুর্বল হওয়ার জন্য আর একটি নতুন সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা করে রাজ্য সরকার।

সব মিলিয়ে প্রায় ৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে এই বকপোতা সেতু টি নির্মান করা হয়েছে।  উল্লেখ্য এই নতুন সেতুটি তৈরির ফলে হুগলির জাঙ্গিপাড়া থেকে হাওড়ার উদয়নারায়ণপুর দুই জেলার মধ্যে যোগাযোগ সুদৃঢ় হতে চলেছে।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা