পাঁচলার সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত হোমে মৃত্যু নাবালকের, অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু পুলিশের

নিজস্ব সংবাদদাতা : এক নাবালকের মৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ালো পাঁচলার মালিপুকুর সমাজ উন্নয়ন সমিতি নামের একটি সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত হোমে। মৃত নাবালকের নাম সজল(১৩)। জানা গেছে শুক্রবার রাতে মাথায় গুরুতর আঘাত নিয়ে সজলকে গাববেড়িয়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে হোম কর্তৃপক্ষ। শনিবার সকালে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। পাঁচলা থানার পুলিশ মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে পাঠায়। একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে ভবঘুরে সজলের মানসিক বিকৃতি ছিল। মাসখানেক আগে তাকে নিয়ে আসা হয়েছিল এই হোমে। শুক্রবার সন্ধ্যায় হোমের মেয়েদের কয়েকজন আবাসিকের সাথে মারামারি হয় সজলের। সেই সময় তার মাথায় গুরুতর আঘাত লাগে। হোম কর্তৃপক্ষ তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। পুলিশের পাশাপাশি হাওড়া জেলা প্রশাসন‌ও এই মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। পাঁচলার সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক এশা ঘোষ জানান দুঃখজনক ঘটনা। মৃতের ইনকোয়েস্ট করা হয়েছে। সমাজকল্যাণ দফতর এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বলেও তিনি জানান। তিনি আরো বলেন হোম কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পেলেই পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। পাঁচলা থানায় উপস্থিত হোমের এক কর্তা উজ্জ্বল নন্দীকে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন যা জানানোর পুলিশকে জানানো হয়েছে। আমাদের কিছু জানা নেই। উল্লেখ্য দীর্ঘদিন ধরেই এই হোমের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠেছে। বারবার ঘটছে হোম থেকে নাবালক পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা। পাশাপাশি ঘটেছে আবাসিকের মৃত্যু বা আবাসিকদের মারধোরের অভিযোগ। স্বাভাবিক ভাবেই হোমের মধ্যে থাকা নাবালকদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে এলাকার মানুষ। পাঁচলা পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি সেখ জলিল বলেন লজ্জাজনক ঘটনা। তার দাবি তিনি হোম কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, যে কেন বারবার এই ধরনের ঘটনা ঘটছে। তার প্রত্যুত্তরে হোম কর্তৃপক্ষ তাকে জানিয়েছে, প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাঝে মাঝে সাবালকদের‌ও হোমে পাঠানো হয়। যার পরিকাঠামো তাদের নেই। সেই কারণেই এই ধরনের ঘটনা ঘটছে।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা