দামোদরের উপর ব্রিজের দাবিতে শ্যামপুরের দেওয়ানতলায় মিছিল ও পথসভা, হাজির কয়েক’শো মানুষ

নিজস্ব সংবাদদাতা : গ্রামীণ হাওড়ার শ্যামপুরের দেওয়ানতলা ও উলুবেড়িয়ার বোয়ালিয়ার মাঝখান দিয়ে চলে গিয়েছে দামোদর নদী। শ্যামপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের অসংখ্য মানুষ প্রতিদিন দেওয়ানতলা থেকে নদী পেরিয়ে বোয়ালিয়া হয়ে উলুবেড়িয়া আসেন। নদী পারাপারের ক্ষেত্রে একমাত্র ভরসা ইঞ্জিনচালিত নৌকা। মানুষ থেকে সাইকেল কিমবা বাইক পারপারের একমাত্র মাধ্যম নৌকাই। এই জলপথে প্রতিদিন প্রায় হাজার পাঁচেক মানুষ যাতায়াত করেন। সড়কপথে উলুবেড়িয়া আসতে এখানকার মানুষকে ১২-১৫ কিমি অতিরিক্ত পথ অতিক্রম করতে হয়। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে এলাকার মানুষ দীর্ঘদিন ধরে দামোদরের উপর পাকা ব্রিজের দাবি জানিয়ে আসছেন।

এলাকাবাসীর দাবি, প্রশাসনের কাছে বারবার ব্রিজের আর্জি জানালেও কোনোরূপ কাজ হয়নি। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে ব্রিজের দাবিতে রবিবার শ্যামপুর-২ ব্লকের দেওয়ানতলায় মিছিল ও পথসভার মাধ্যমে আবারও সরব হল এলাকার মানুষ। সেতুর দাবি সমন্বিত পোস্টার হাতে নিয়ে এদিন কয়েক’শো মানুষ মিছিলে যোগ দেন। এলাকাবাসীর দাবি, মানুষের সুবিধার্থে অবিলম্বে এখানে একটি সেতু নির্মাণ করতে হবে।

এলাকার বাসিন্দারা জানান, রাতে কোনো মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের উলুবেড়িয়া হাসপাতাল বা নার্সিংহোমে পৌঁছাতে হয়। অতিরিক্ত এই ১৫ কিলোমিটার রাস্তা অতিক্রম করতে গিয়ে অনেক সময় গুরুতর অসুস্থ রোগীর মৃত্যু ঘটেছে। পাশাপাশি নৌকা পারাপার করার সময় বেশ কয়েকবার দুর্ঘটনাও ঘটেছে।

এলাকার ছাত্রছাত্রীরা জানান, অনেক সময় খেয়া পার করতে দেরি হওয়ায় তারা নানারকম সমস্যার সম্মুখীন হন। কখনো কখনো পরীক্ষার সময় পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছাতে অনেক সময় লেগে যায়। এর জেরে নানা সমস্যার সম্মুখীন হন তারা। তারা জানান, এখানে একটি সেতু নির্মাণ করা হলে সহজেই তারা উলুবেড়িয়া শহর বা নিকটবর্তী বিরশিবপুর রেল স্টেশনে পৌঁছাতে পারবেন। পাশাপাশি, করোনা পরিস্থিতিতে খেয়া পারাপারের ভাড়া বৃদ্ধি হওয়ায় সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ। তাদের দাবি অবিলম্বে সেতু নির্মাণ করতে হবে, তা নাহলে তারা আগামী দিনে আরও বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা