পাঁচলার গ্রামে নদীর জল দূষণে জেরবার এলাকাবাসী, দুর্গন্ধ, আত্মীয়রাও বিমুখ

নিজস্ব সংবাদদাতা : গ্রামীণ হাওড়ার পাঁচলার জলাবিশ্বনাথপুরের বুক চিরে বয়ে চলেছে কৌশিকী নদী। অনেকেই নামটার সাথে পরিচিত না হলেও, একসময় ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় অন্যতম মাধ্যম ছিল কৌশিকী নদী। সময়ের স্রোতে সবই পরিবর্তন হয়েছে। নদী তীরবর্তী দু’পাশে গড়ে উঠেছে জনবসতি। নদীতে মাছ ধরে এখনো জীবিকা নির্বাহ করেন বেশ কিছু মানুষ। কিন্তু কৌশিকী নদীর জল ক্রমশই দূষিত হয়ে এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে টেকা দায় হয়ে উঠেছে স্থানীয় মানুষের। এমনটাই অভিযোগ করছেন পাঁচলার জলাবিশ্বনাথপুর এলাকার বেশ কিছু মানুষ। স্থানীয় মানুষের কথায়, নদীর জলের রঙ আলকাতরার মতো কালো। নদীর জল থেকে এতোটাই দুর্গন্ধ ছড়ায় যে টেকা দায় উঠেছে নদীর দু’পাশের মানুষের। বিস্তারিত জানতে নীচে পড়ুন...

স্থানীয় মানুষের অনুমান, বিভিন্ন কলকারখানার নোংরা জল নদীতে মিশেই কৌশিকী নদীর জলকে দূষিত করছে। তা থেকেই এই সমস্যা। এসমস্যায় দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে ভুগছেন জলাবিশ্বনাথপুর এলাকার মানুষ। স্থানীয় মানুষ জানিয়েছেন, মাঝেমধ্যেই নদীর জলে মাছ ভেসে ওঠে। এমনকি নদীর জল ভীষণভাবে দূষিত হওয়ায় তা নিত্য ব্যবহারেও ভীষণ সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তাদের কথায়, বাড়িতে এতোই দুর্গন্ধ যে আত্মীয়স্বজনরাও এখানে আসতে চাননা। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, একাধিকবার স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েও কোনো সুরাহা মেলেনি। বিষয়টি সম্পর্কে জলাবিশ্বনাথপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আসলাম মোল্লা জানান, এই নদীর সঙ্গে স্থানীয় মানুষের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। নদীর জল দূষিত হওয়ার ফলে মানুষ সমস্যায় পড়ছে। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনাও হয়েছে বলে তিনি জানান।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা