আমতার সোনামুই গ্রামে তীব্র উত্তেজনা, ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশ বাহিনী

নিজস্ব সংবাদদাতা : গত কয়েকদিন আগেই আমতার সোনামুই ফতে সিং নাহার উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কুল মাঠে এলাকার ছাত্র-যুবকে মারধরের অভিযোগ উঠেছিল স্থানীয় একটি সংগঠনের সদস্যদের বিরুদ্ধে। তারই বিরুদ্ধে প্রতিবাদে জানাতে বৃহস্পতিবার বিকালে সোনামুই স্কুলের মাঠে জড়ো হন সোনামুই গ্রামের বেশ কিছু মানুষ।

সূত্রের খবর, সেই প্রতিবাদ সভা চলাকালীন সংশ্লিষ্ট সংগঠনটির সদস্যদের সাথে তীব্র বাদানুবাদ শুরু হয় গ্রামবাসীদের। মুহুর্তের মধ্যেই ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে সোনামুই স্কুল সংলগ্ন ফুটবল মাঠে। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে আসে বিশাল পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা। তাঁরা দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। পুলিশ ক্লাবটিকে সিল করে দেয়।

গ্রামবাসীদের দাবি, সোনামুই গ্রামের এই ফুটবল মাঠ কোনো সংগঠনের ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়। এটি সোনামুই ফতে সিং নাহার উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ। এটি সকলের ব্যবহার করার অধিকার আছে। তাঁদের অভিযোগ, মাঠটি স্কুলের হলেও স্থানীয় একটি সংগঠন মাঠটিকে ‘ইচ্ছেমতো’ ব্যবহার করছে। তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গেলে হেনস্থার শিকার হতে হচ্ছে গ্রামের ছাত্র-যুবকে।

যদিও সংশ্লিষ্ট সংগঠনটির এক কর্তার দাবি, স্কুলের প্রাথমিক অনুমতি নিয়েই স্কুলের মাঠে কিছুদিন ধরে এলাকার শিশু-কিশোরদের নিয়ে একটি ফুটবল প্রশিক্ষণ শিবির চালানো হচ্ছে। সেই শিবির চলাকালীনই এক যুবক দিন তিনেক আগে মাঠে বাইক নিয়ে নেমে পড়েন। তার প্রতিবাদ করতে গেলে আমাদের এক সদস্যের সাথে বচসা শুরু হয়। ভুলবশত আমাদের এক সদস্য ওই যুবককে ‘চড়’ মারেন। যার জন্য আমরাও ক্ষমাপ্রার্থী।

তাঁর অভিযোগ, বৃহস্পতিবার প্রতিবাদ সভা চলাকালীন তাঁদের বেশ কয়েকজন সদস্যকে মারধর করা হয়। এই ঘটনা প্রসঙ্গে সোনামুই ফতে সিং নাহার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দয়াময় ভট্টাচার্য বলেন, স্কুলের মাঠে একটি অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে গেছে। রবিবার সবপক্ষকে নিয়ে একটি জরুরি সভার আয়োজন করা হয়েছে।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা