পেপের ভিতর পেপে দেখে বিস্মিত শ্যামপুরের রাউতাড়ার গ্রামবাসী

নিজস্ব সংবাদদাতা : পেপের ভিতর পেপে দেখে বিস্মিত শ্যামপুরের রাউতাড়ার গ্রামবাসী। একটা ফলের ভিতর আরেকটা ফল। আশ্চর্যজনক মনে হলেও এমনটাই দেখা গেছে শ্যামপুরের বাছরী গ্রাম পঞ্চায়েতের রাউতাড়া গ্রামে। যা দেখে বিস্মিত অনেকেই। পাকা পেঁপে কাটতেই দেখা গেছে পেঁপের ভিতরেই অবিকল আরেকটি পেঁপে। সেই পেঁপে কাটতেই আরও একটি পেঁপে দেখা যায়। কিছুদিন আগে গৃহবধূ বিমলা প্রামাণিক নিজেদের গাছের থেকে পারা পেঁপে কাটেন। তিনি দেখেন পেঁপে কাটার পর পেঁপের ভিতর আরেকটি পেঁপে। বিমলা তাঁর স্বামীকে ঘটনার কথা বললেও বিশ্বাস করেনি তাঁর স্বামী জগৎপতি প্রামাণিক। রাউপাড়ার বাসিন্দা জগৎপতি প্রামাণিক ধূলাগোড়িতে এক কারখানার নিরাপত্তা কর্মী। বাড়ির গাছের পাকা পেঁপে টিফিন করবেন বলে নিয়ে গিয়েছিলেন। টিফিনের সময় পাকা পেঁপে কাটতেই অবাক হয়ে যান। পেঁপের ভিতর অবিকল আরেকটি পেঁপে। সহকর্মীদের দেখালে তারাও অবাক হন। জগৎপতি প্রামাণিক জানালেন, এর আগে স্ত্রী একদিন বলেছিলেন পেঁপে কাটতেই পেঁপে মিলেছে। বিশ্বাস হয়নি। এখন দেখছি স্ত্রীর কথা সত্যি। ঠিক কি কারণে এই ঘটনা!
কেন এমনভাবে পেঁপের ফলন? বাগনান কলেজের উদ্ভিদবিদ্যার অধ্যাপক ও গবেষক আক্রামুল হক জানান, পেঁপের ভিতর আরেকটা পেঁপে পাওয়া কোনো অবাক করা ঘটনা নয়। এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা রয়েছে। নির্দিষ্টভাবে পেঁপে গাছের ফুলের পুংকেশর ও গর্ভকেশরের গঠনগত বিচ্যুতির ফলে পেঁপে ফলের ভিতর এক বা একাধিক পেঁপে ফল হতে পারে। পরিবেশগত কারণে মাটিতে ও বায়ুমণ্ডলের আদ্রতা উচ্চ হারে বৃদ্ধি পায়। সঙ্গে মাটিতে নাইট্রোজেনের আধিক্য ঘটলে ফুলের মোট দশটি পুংকেশরের মধ্যে কয়েকটি পুংকেশর গর্ভপত্রে রূপান্তরিত হয়ে প্রধান ডিম্বাশয়ের গায়ে অবিচ্ছিন্নভাবে যুক্ত হয়। ফলস্বরূপ ফলের গঠনগত পরিবর্তন ‘ফ্রুট ডিফর্মেশন’ হয়। পুংকেশরের এই অস্বাভাবিক আচরণকে বলা হয় ‘স্ট্যামেন কার্পেল্লয়ডী’ (পুংকেশরীয় গর্ভপত্রায়ণ)। তাই পেঁপে ফলের ভিতর আরেকটি পেঁপে দেখা আশ্চর্যজনক ঘটনা নয়।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা