নিউ নরম্যালে ভরসা রোবটে, অভিনব উদ্যোগ পুজো কমিটির

নিজস্ব প্রতিবেদন : রোবট সাম্রাজ্য শুরু হবে পৃথিবীতে। হলিউডের কত সিনেমাতেই এই গল্প দেখা গেছে। কিন্তু বাস্তবে একদম বাঙালির সবচেয়ে বড়ো উৎসবে রোবটের ব্যাবহার! সেই যেন এবারের পুজোর হত্তা কত্তা। পুজো উদ্বোধন থেকে শুরু করে মণ্ডপের ভিতরে ফিজিক্যাল ডিসটেন্স করানো সঙ্গে স্যানিটাইজিং সব দায়িত্ব তার। এমনই এক রোবটযুক্ত পুজো দেখাতে চলেছে ঠাকুরপুকুর এসবি পার্ক পুজো কমিটি।

করোনা আবহে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পুজো করতে বদ্ধপরিকর পুজো কমিটিগুলি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যন্ত্রমানবীকে দিয়েই পুজোর উদ্বোধন করাল ঠাকুরপুকুর এসবি পার্ক। থিম মন্ডপের মডেল উদ্বোধন করে যন্ত্রমানবী মারিয়া। চলতি বছরের পুজোর পাঁচ দিনই এসবি পার্কের মণ্ডপে দেখা মিলবে এর। ২০১৯ সালে মারিয়ার জন্ম। মার্কিন সংস্থা ওয়েবকো-র অফিসে রিসেপশনিস্ট কাম সিকিউরিটি গার্ডের কাজ শুরু করে।

এরপর মারিয়ার মতোই আরো একটি যন্ত্রমানবী তৈরি করেন মারিয়ার উদ্ভাবক ডঃ অঙ্কুশ ঘোষ। এই দ্বিতীয় মারিয়াকেই এবার এসবি পার্কের পুজো মণ্ডপে দেখা যাবে। শুধু দেখা যাবে তাই নয়, পূজোর পাঁচ দিন এই লাল পেড়ে সাদা শাড়ি পড়ে দর্শনার্থীদের স্যানিটাইজার মাস্কও দেবে মারিয়া। এসবি পার্ক জানাচ্ছে সংস্পর্শ এরিয়ে চলার বার্তা দেওয়ার উদ্দেশ্য। তাদের এই ভাবনা। পুজো কমিটির সদস্যরা জানাচ্ছেন, ‘কলকাতা তথা বাংলায় বিজ্ঞানের অগ্রগতিকে তুলে ধরতেই তাদের ভাবনার আরও একটি কারন। এই কারনেও মারিয়াকে পুজোর মুখ করেছেন তারা।”

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা