ফুটবলপ্রিয় বাঙালি আর কোলকাতার সাথে অদ্ভুত বন্ধনে জড়িয়ে গিয়েছিলেন মারাদোনা

বিশেষ প্রতিবেদন : বাঙালি মানে ফুটবল, বাঙালি মানে এক অদ্ভুত আবেগ। বাঙালির সেই নির্ভেজাল ফুটবল আবেগের জালেই কখন যেন নিজেকে আষ্ঠেপৃষ্ঠে জড়িয়ে ফেলেছিলেন বিশ্ব ফুটবলের ‘রাজপুত্র’ দিয়েগো মারাদোনা। ২০০৮ সালে তিলোত্তমার মাটিতে প্রথমবার পা রেখেছিলেন শতাব্দীর সেরা এই কিংবদন্তি ফুটবলার। সেবার দীর্ঘ ৪৮ ঘন্টা কাটিয়েছিলেন কল্লোলিনী তিলোত্তমার বুকে। মোহনবাগান মাঠে ১১ মিনিটের অদ্ভুত জাদুতে মুগ্ধ করেছিলেন মাঠে আসা হাজার হাজার ফুটবল ভক্তকে। মোহনবাগান মাঠে আসা অজস্র ফুটবল ভক্তের আবেগকে সেদিন ভীষণভাবে ভালোবেসে ফেলেছিলেন মারাদোনা। তাই তিনি সেদিন একের পর এক বল মেরেছিলেন গ্যালারির উদ্দেশ্যে৷

নিজের স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে বুকে হাত ঠুকে দর্শকদের নির্ভেজাল আবেগকে সম্মান জানিয়েছিলেন। বাঙালির ফুটবল আবেগের টানে তিনি আবারও ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে কোলকাতার বুকে পা রেখেছিলেন। সেবার একটি প্রীতি ম্যাচে অংশগ্রহণ করার কথা থাকলেও মাঠে নামেননি। তবে মাঠের বাইরে বসেই সেদিন আরেকবার বাঙালির ফুটবল আবেগকে খুব সামনে থেকে প্রত্যক্ষ করেছিলেন।

এর পাশাপাশি, কোলকাতায় নিজের হাতে উন্মোচন করেছিলেন তাঁরই মর্মর মূর্তি। এ শহরে মারাদোনার পছন্দের জায়গাগুলির অন্যতম ছিল রিপন স্ট্রিটের মাদার হাউস। ২০১৭ সালে এসেও মাদার হাউসে ঘুরে যান মারাদোনা। আবারও তাঁর আসার আশায় দিনগুনছিল বাংলার অসংখ্য ফুটবলপ্রেমী। হয়ত কোলকাতা শহরের ফুটবল আবেগের টানে আবারও এ শহরের বুকে আসতে চেয়েছিলেন ফুটবলের ঈশ্বর। সেই আশা চিরতরে অধরাই রয়ে গেল। আর কোলকাতা জুড়ে থেকে গেল শতাব্দীর অন্যতম সেরা কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়েগো মারাদোনার অজস্র স্মৃতি।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা