আড্ডাখানার আসর থেকেই ভাটোরা মুখার্জী বাড়িতে শুরু হয়েছিল দেবীর আরাধনা

নিজস্ব প্রতিবেদন : হাওড়া জেলার একমাত্র দ্বীপাঞ্চল ভাটোরা। রূপনারায়ণের তীরে এই ভাটোরার বুকেই বসত মুখার্জী ব্রাদার্সের আড্ডখানার আসর। আজ নয়, সে প্রায় সাড়ে চারশো বছর আগের কথা।পারিবারিক ব্যবসার পাশাপাশি আড্ডাখানায় চলত আলাপআলোচনার পর্ব। গ্রামে বাসন্তী পুজো হলেও সেভাবে দুর্গাপুজোর চল ছিলনা। তাই আড্ডাখানার আসর থেকেই এলো দুর্গাপুজো করার ভাবনা। সেই থেকেই ভাটোরার শিবতলা বাজারের অন্যতম বনেদী পরিবার মুখার্জীদের বাড়িতে শুরু হল মা দুর্গার আরাধনা। সেই আরাধনা আজও অটুট।

মুখার্জী পরিবার সূত্রে জানা যায়, তিন কর্তা বাঞ্চারাম বিদ্যাবাগীশের (বাঞ্চারাম, বিদ্যা ও বাগীশ) হাত ধরে এই পুজোর পথচলা শুরু। তারপর অনেক ঝড়-ঝঞ্ঝা এসেছে কিন্তু মুখার্জী বাড়ির ঐতিহ্যবাহী দুর্গোৎসব আজও সমহিমায় সপ্রতিভ। বাড়ির সাথেই রয়েছে দুর্গামঞ্চ। সেখানেই প্রতিবছর দেবী পূজিত হন। পঞ্জিকা মতে ষষ্ঠীতে মা’য়ের বোধন হয়।

তারপর সপ্তমী, অষ্টমী, নবমীতে বলিদান পর্ব চলে। সবশেষে দশমীতে বিসর্জন। এই চিরাচরিত প্রথা মেনেই প্রতিবারের মতোই এবারও পুজো হচ্ছে মুখার্জী বাড়ির ঠাকুর দালানে। পুজোর অন্যতম উদ্যোক্তা তাপস মুখার্জী বলেন, “আমাদের পুজোর বয়স প্রায় সাড়ে চারশো। ঝড়-ঝঞ্ঝা, বৃষ্টি, বন্যা কোনো কিছুতেই আমাদের পুজো বন্ধ তো দূরের কথা সমস্ত প্রথা মেনে আমাদের পুজো হয়েছে। তাই এবারও করোনা সম্পর্কিত বিধি মেনে সমস্ত রীতিনীতি পালিত হচ্ছে আমাদের বাড়িতে।”

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা