আমতার গ্রামে তিনশো বছরের প্রাচীন রথে চড়েন রঘুনাথ, সাজো সাজো রব

নিজস্ব সংবাদদাতা : আর মাত্র একটা দিন। তারপরই অনুষ্ঠিত হতে চলেছে রথযাত্রা উৎসব। কোভিডের জাঁতাকলে গত দু’বছর বিভিন্ন জায়গায় সাড়ম্বরে রথযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়নি। কোথাও কোনোরকমে রথের রশিতে টান পড়লেও মেলা বন্ধ ছিল, আবার কোথাও বা পুজো করেই রথযাত্রা স্থগিত রাখা হয়েছিল। তাই এবার চারিদিকে সাজো সাজো রব। সেই ছবিই ধরা পড়ল গ্রামীণ হাওড়ার আমতা-২ ব্লকের অমরাগড়ী রায় বাড়িতে। অমরাগড়ী রায় বাড়ির ঐতিহ্যবাহী রথযাত্রা উৎসব এবার ৩০৩ বছরে পদার্পণ করল। প্রাচীন রথযাত্রাকে ঘিরে এখন রায় বাড়িজুড়ে উৎসবের পরিবেশ। রথ পরিষ্কারের কাজ ইতিমধ্যেই হয়ে গেছে। রায় বাড়ি সূত্রে জানা গেছে, ১১২৬ সালের ১৫ ই বৈশাখ অমরাগড়ী গজলক্ষ্মী মাতা এস্টেট গড়ে ওঠে। সেই থেকেই চালু হয় রথযাত্রা উৎসব। বিস্তারিত জানতে নীচে পড়ুন...

জগন্নাথ নয়, এখানে রথে চড়েন রায় বাড়ির কূলদেবতা রঘুনাথ জিউ। রথের ঘর থেকে রথের রশিতে টান পড়ে। রথ গিয়ে পৌঁছায় প্রায় ৫০০ মিটার দূরে মেলাপ্রাঙ্গণে। রায় বাড়ির অন্যতম সদস্য সৌরভ রায় জানান, রথযাত্রা আমাদের বাড়ির অন্যতম উৎসব। গত দু’বছর কোভিডের জেরে মেলা হয়নি। তাই এবার বহু মানুষ মুখিয়ে আছেন। তিনি জানান, তিনশো বছরেরও বেশি প্রাচীন এই রথটি এখনো অব্ধি মোট তিনবার সংস্কার করা হয়েছে। অমরাগড়ী তো বটেই আশপাশের আরও বেশ কয়েকটি গ্রামের বহু মানুষ মেলায় ভিড় জমান। নিয়ম মেনে উল্টোরথও সাড়ম্বরে পালিত হয়। আর একটা দিন পরেই তিনশো তিন বছরের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী এই রথযাত্রাকে ঘিরেই মেতে উঠবে অমরাগড়ী গ্রাম। তারই শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে।

Author: নিজস্ব সংবাদদাতা